Saturday, May 29, 2021

Caste defination - characteristic


 



১২.৯ জাতির সংজ্ঞা ও বৈশিষ্ট্য (Definition and Characteristic of Caste System)—জাতি ও বর্ণ (Caste & Varna)


শ্ৰেণীব্যবস্থা ছাড়া জাতিব্যবস্থা হল ভারতীয় সমাজের একটি সুপ্রাচীন বৈশিষ্ট্য। ইরেজি Caste শব্দটির অর্থ হল জন্ম বা বংশানুক্রমিক অর্থাৎ জাতি জন্মভিত্তিক। অধ্যাপক মজুমদার ও মদনের মতে, জাতি বলতে এক বদ্ধ গােষ্ঠীকে বােঝায়। বস্তুতপক্ষে জাতি হল এক আন্তঃবৈবাহিক গােষ্ঠী। এই গােষ্ঠীর সদস্যদের সামাজিক ক্ষেত্রে কতকগুলি বিধিনিষেধ বা আচার-আচরণ মেনে চলতে হয়। এরা চিরাচরিত ও অভিন্ন বৃত্তি অনুযায়ী এবং উৎপত্তিসূত্রে এক ও সমজাতীয় স্বরূপ। সমাজতাত্ত্বিক কুলির মতে,একটি জনগােষ্ঠী জন্মের ভিত্তিতে কিছু ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি এবং চিরাচরিত বৃত্তি অনুসরণ করলে, তাকে জাতি বলে।  এক বংশানুক্রমিক গােষ্ঠী যার একটি চিরাচরিত পেশা রয়েছে এবং সদস্যদের নিয়ন্ত্রণের জন্য নির্দিষ্ট আচরণ ও বিধিনিষেধ রয়েছে। জাতি ব্যবস্থার বৃত্তি অনুযায়ী ভারতীয় সমাজের জনগােষ্ঠীকে প্রধান চারভাগে বিভক্ত করা হয়—ব্রাহ্মণ, ক্ষত্রিয়, বৈশ্য ও শূদ্র। জাত ছাড়া রাম আহুজা, ঘুরে, ম্যাক্স ওয়েবার প্রমুখ সহজাতের (sub-caste) ধারণা দান করেন। প্রকৃতপক্ষে জাতের উপবিভাজন হল সহজাত। উদাহরণ স্বরূপ ব্রাহ্মণ হল জাত। অন্যদিকে ব্রাহ্মণ সম্প্রদায়ভুক্ত বিভিন্ন গােষ্ঠীকে সহজাত বলা যায়।


সমাজতাত্ত্বিক ঘুরে মন্তব্য করেন আর্যদের আগমনের পর উপজাতিদের সঙ্গে পার্থক্য রক্ষার জন্য জাতির উদ্ভব হয়। এক শ্রেণীর সমাজবিজ্ঞানী জাতি ও বর্ণ মনে করেন যে, শ্রেণী যখন পেশা বা বৃত্তিকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠে এবং বংশধারার মধ্যে সীমাবদ্ধ হয়, তখন জাতির উদ্ভব হয়। লেসফিল্ডের মতে আর্যরা আসার পূর্বে ভারতে প্রাক-দ্রাবিড়ীয় অধিবাসীদের মধ্যে জনগােষ্ঠীগুলি নির্দিষ্ট পেশার ভিত্তিতে বিভক্ত ছিল। পরবর্তীকালে আর্য আগমন ও হিন্দু শাস্ত্রের চার বর্ণের (ব্রাহ্মণ, ক্ষত্রিয়, বৈশ্য ও শূদ্র) ভিত্তিতে সৃষ্ট বর্ণাশ্রম ব্যবস্থা শ্রেষ্ঠত্ব রক্ষার জন্য জন্ম-ভিত্তিক হওয়ার ফলে জাতিব্যবস্থার উদ্ভব হয়। যাইহােক, প্রাচীন ভারতে বর্ণাশ্রম ব্যবস্থায় উচ্চবর্ণ ও ব্রাহ্মণ্য ধর্মের প্রাধান্য রক্ষার জন্য উচ্চবর্ণের অধিকার সুপ্রতিষ্ঠিত ছিল। সামাজিক দায়-দায়িত্ব ও সেবা শূদ্রদের। জন্য নির্দিষ্ট ছিল। চতুর্বর্ণের উৎপত্তি সম্পকে ঋগবেদে বলা হয়েছে যে, ব্রহ্মার মুখ । থেকে ব্রাহ্মণের আবির্ভাব হয়েছে। উনি অর্জন হল ব্রাহ্মণের প্রধান কাজ। ক্ষত্রিয় বাহু। থেকে নির্গত হয়েছে, যুদ্ধ ও শাসন হল ক্ষত্রিয়ের প্রধান দায়িত্ব। ব্রহ্মার উরু থেকে আবির্ভাব বৈশ্যের প্রধান পেশা হল বাণিজ্য। ব্রলার পদযুগল হতে সৃষ্ট শূদ্রের প্রধান কর্তব্য হল উপরােক্ত তিন বর্ণের সেবা করা।


সমাজ বিভাজনের ক্ষেত্রে শ্রেণী হল মুক্ত ব্যবস্থা (open system) এবং জাতি হল বদ্ধ ব্যবস্থা (closed system)। এই দুটি ব্যবস্থার মধ্যে বিভিন্ন ধরনের সামঞ্জস্য ও অসামঞ্জস্য লক্ষ করা যায়। সামাজিক স্তরবিন্যাসের ক্ষেত্রে শ্রেণী ও জাতির মধ্যে নিম্নলিখিত কয়েকটি পার্থক্য লক্ষণীয়।


প্রথমত, জন্মসূত্র অথবা কুলগত বিচার হল জাতিভেদ প্রথার ভিত্তি। তাই জাতিভেদ প্রথা বংশানুক্রমিক (Hcreditary) এবং জাতি হল একটি বদ্ধ গােষ্ঠী। একটি জাতির মধ্যে অন্য জাতির মানুষের প্রবেশ বা অন্তর্ভুক্তি অসম্ভব। অন্যদিকে শ্রেণীভেদ হল সামাজিক স্তরবিন্যাসের আধুনিক রূপ। জীবনের সুযােগসুবিধা, নতুন নতুন সম্ভাবনার তারতম্য বা সামাজিক প্রতিষ্ঠার বৈষম্য হল শ্রেণীভেদের ভিত্তি। সামাজিক বৈশিষ্ট্যের পরিপ্রেক্ষিতে জাতিভেদ সুচিত, কিন্তু অর্থনৈতিক বৈশিষ্ট্যের পরিপ্রেক্ষিতে শ্রেণীভেদ সূচিত হয়।


দ্বিতীয়ত, সামাজিক সচলতা শ্রেণীবিন্যাসের একটি গুরত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য। জাতিবিন্যাসের ক্ষেত্রে এই বৈশিষ্ট্য অনুপস্থিত। সামাজিক শ্রেণীর ক্ষেত্রে আরােহণ অবরােহণের সুযােগ আছে। জাতিভেদ প্রথায় এই সুযোগ নেই। তাই আধুনিক সমাজের শ্রেণীবিন্যাস হল মুক্ত সমাজের গুতীক।


তৃতীয়ত, শ্রেণীবিন্যাসের ক্ষেত্রে পদমর্যাদার প্রশ্নটি পূর্বনির্মানিত বা পরিবর্তনীয় নয় পরিবর্তনযােগ্য। কিন্তু জাতিবিন্যাসের ক্ষেত্রে পদার্যাদা জমিত্রে নির্দিষ্ট এক পরিবর্তন ঘটে না। অর্থাৎ সামাজিক শ্রেণীর মর্যাদা অজিত (Acquired status) এবং জাতির মর্যাদা আরােপিত (Ascribed stitus)।

No comments:

Post a Comment

if you want to know something more comment m
please

Jean Baudrillard idea of simulacrum

  BAUDRILLARD অনুসারে, আধুনিক আধুনিক সংস্কৃতিতে যা ঘটেছিল তা হ'ল আমাদের সমাজ মডেল এবং মানচিত্রের উপর এতটাই নির্ভরশীল হয়ে উঠেছে যে আমরা ...